KeyOfIslam
Welcome To KeyOfIslam.com. KeyOfIslam is the platform to spread love and brotherhood among all people through the light of Prophet Mohammad(peace be upon him), the Final Messanger of Allah. Here you will get informations with precision.
Individual Articles
হারাম টাকা দিয়ে কুরবানী করলে কুরবানী হবে কি না?
প্রশ্ন:- হারাম টাকা দিয়ে কুরবানী করলে কুরবানী হবে কি না? 🌺উত্তর:- হারাম টাকা যে কোন কাজে ব্যয় করা হারাম। সেটা ধর্মীয় কাজ হোক অথবা পার্থিব কাজ। তার বিধান হল যার নিকট থেকে অর্জন করেছে , তাকে ফেরত দিয়ে দেয়া, সে না থাকলে তার ওয়ারিসদের দিয়ে দেয়া, তারাও যদি না থাকে বা অনুসন্ধান না পাওয়া যায় তাহলে ফকিরের প্রতি সাদকা করে দেয়া। এ ছাড়া অন্য কোন কাজ করা যাবে না। তবে যদি কেউ হারাম টাকা দিয়ে কুরবানী করে ফেলে তাহলে ওয়াজিব আদায় হয়ে যাবে কিন্তু সেই কুরবানী আল্লাহ পাক কবুল করবেন না। অনুরূপভাবে যদি কেউ হারাম টাকা দিয়ে কারো সাথে কুরবানীতে শরীক হয়, তাহলে তার ওয়াজিব আদায় হয়ে যাবে সাথে সাথে তার সাথে অংশগ্রহণ কারীদেরও কুরবানী সুদ্ধ হবে। কারণ, হারাম টাকা‌র অপবিত্রতা জন্তুর মধ্যে অনুপ্রবেশ করে না। এ প্রসঙ্গে ফোক্বাহায়ে কেরাম একটি নীতি বর্ণনা করেছেন যে, ক্রয় করার সময় যদি عقد (চুক্তি) এবং نقد (যে টাকা নগদ প্রদান করা হয়) একত্রিত হয়ে যায়, তাহলে মাল বা সম্পদের অপবিত্রতা ক্রয় কৃত বস্তুর মধ্যে অনুপ্রবেশ করে। আর যদি হারাম সম্পদে عقد এবং نقد একত্রিত না হয়; বরং হারাম টাকা বা সম্পদের প্রতি عقد বা চুক্তি হয় অথবা হারাম সম্পদ নগদ আদায় করে তাহলে হারাম সম্পদের অপবিত্রতা ক্রয়কৃত বস্তুর মধ্যে অনুপ্রবেশ করে না। عقد এবং نقد একত্রিত হওয়ার অর্থ: ত্রয় করার সময় দু হাজার টাকার নোট দেখিয়ে একথা বলা যে, "আমি এই দু হাজার টাকা (আসলে সেই দু হাজার টাকার নোট হারামের অন্তর্ভুক্ত) -এর বদলে আপনার এই ছাগল ক্রয় করলাম।" পক্ষান্তরে বিক্রেতা কবুল করে নিল। এতে যেহেতু হারাম টাকার উপরে চুক্তি হল আর সেই হারাম টাকাই আবার নগদ আদায় করা হল, ফলে ক্রয় করার সময় عقد এবং نقد উভয় একত্রিত হয়ে গেল। এজন্য ঐ হারাম টাকার অপবিত্রতা জন্তুর মধ্যে অনুপ্রবেশ করে যাবে। কিন্তু আজকাল সাধারণভাবে ক্রয় করার যে নিয়ম প্রচলিত রয়েছে, তাতে عقد এবং نقد একত্রিত হয় না। কারণ, ক্রয় করার সময় কেউ টাকা দেখিয়ে এ কথা বলে না যে, "আমার হাতে এই যে টাকা আছে তার বদলে আপনার এই ছাগল ক্রয় করলাম" এ কথা বলে না। বরং এমনিতেই জিনিস ক্রয় করে আর পকেট থেকে বের করে টাকা প্রদান করে। এতে হারাম টাকার উপরে (نقد) নগদ তো পাওয়া গেল কিন্তু চুক্তি পাওয়া গেল না। এ জন্য হারাম টাকার অপবিত্রতা জন্তুর মধ্যে অনুপ্রবেশ করবে না। হুযূর আলা হযরত রাদিয়াল্লাহু তা'আলা আনহু লিখেছেন: فاذا لم یجتمع علیھا العقد النقد لم یسر الخبث الی الی البدل کما ھو قول الامام الکرخی و علیه الفتوی অনুবাদ:- হারাম সম্পদের প্রতি যদি عقد (চুক্তি) এবং نقد (যে টাকা নগদ প্রদান করা হয়) একত্রিত না হয়, তাহলে অপবিত্রতা বদল (আদান প্রদান কৃত বস্তু) -এর মধ্যে অনুপ্রবেশ করে না। যেমন, ইমাম কারখী রহমতুল্লাহি তা'আলা আলাইহির মতামত, আর এরই উপর ফাতওয়া রয়েছে। (ফাতাওয়া রাযাবীয়াহ, খন্ড: 23, পৃষ্ঠা:562, প্রকাশিত রেযা ফাউন্ডেশন, লাহোর) সিরাজুল ফোক্বাহা, মুহাক্বিকে মাসায়েলে জাদীদাহ হযরত আল্লামা মাওলানা মুফতী মুহাম্মদ নেযামুদ্দীন রেজবী মিসবাহী (শাইখুল হাদীস, আল-জামিয়াতুল আশরাফিয়া মুবারকপুর, আজমগড়, ইউপি) দামা যিল্লুহুল আলী বলেছেন: "হারাম সম্পদ অর্জন করা হারাম। তা ধার্মিক অথবা পার্থিব কাজে ব্যয় করাও হারাম। এরূপ ব্যক্তির প্রতি আবশ্যিক যে, যার নিকট থেকে অন্যায় ভাবে হারাম সম্পদ অর্জন করেছে তাকে ফেরত দিয়ে দিবে, সে না থাকলে তার ওয়ারিসদের দিয়ে দিবে, আজ না দিলে কাল কেয়ামতের দিন মালিককে তার নেকীগুলি দিয়ে দেয়া হবে। এরপরেও যদি কোন ব্যক্তি আল্লাহর ভয় অন্তরে না রেখে হারাম সম্পদ দিয়ে কুরবানীতে অংশগ্রহণ করে নেয় তাহলে ওয়াজিব আদায় হয়ে যাবে এবং (তার সাথে অংশগ্রহণ কারীদের মধ্যে) সকলের কুরবানীর শুদ্ধ হবে।" (মাহনামা আশরাফিয়া, আগষ্ট 2018, পৃষ্ঠা নং 20) হাদীস শরীফে রয়েছে - عَنْ أَبِي هُرَیْرَةَ قَالَ، قَالَ رَسُولُ اﷲِ صلی الله علیه وآله وسلم أَیُّهَا النَّاسُ إِنَّ اﷲَ طَیِّبٌ لَا یَقْبَلُ إِلَّا طَیِّبًا অনুবাদ:- হযরত আবূ হুরাইরাহ্‌ রাদিয়াল্লাহু তা'আলা আনহু থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: হে লোক সকল ! আল্লাহ তা’আলা পবিত্র। তিনি পবিত্র জিনিস ব্যতীত কিছু ক্ববূল করেন না। (তিরমিযি শরীফ, হাদিস: 2989) প্রকাশ থাকে যে, কোনো জিনিস দ্বায়িত্ব থেকে নেমে যাওয়া আলাদা বিষয় আর তা কবুল হওয়া এটা আলাদা বিষয়। যেমন- হারাম টাকা দিয়ে হজ্জ করলে "ফরয" দায়িত্ব থেকে নেমে যায়; কিন্তু সেই হজ্জ কুবুল করা হয় না। তদ্রুপ হারাম টাকা দিয়ে কুরবানী করলে "ওয়াজিব" দায়িত্ব থেকে নেমে যায়; কিন্তু সেই কুরবানী কবুল করা হয় না। والله تعالیٰ ورسوله اعلم بالصواب عز و جل و صلی الله علیه وسلم ইতি ✍️মুফতী গুলজার আলী মিসবাহী 🌎হেমতাবাদ, উত্তর দিনাজপুর, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত। 🌎 24/11/1443 হিজরী 25/06/2022 খ্রিষ্টাব্দ

Comments -

Posted On: 2022-06-25
খুব সুন্দর পোস্ট। আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহ আমাদের সকলকে হারাম টাকা উপার্জন করতে বিরত রাখেন। আমীন।
AeyshaPosted On: 2022-06-25
খুব ভালো ও প্রয়োজনীয় একটি লেখা। সবাই কে পাঠ করা দরকার।
Md Abdus SalamPosted On: 2022-06-26
Masallah 🌹🌹🌹 Allah Tayala apnar ilm o amole borkot dan koren..Amin
সারিকা খাতুনPosted On: 2022-06-27
Posted On: 2022-07-01
খুব সুন্দর পোস্ট। আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহ আমাদের সকলকে হারাম টাকা উপার্জন করতে বিরত রাখেন। আমীন।
Md Ali RazaPosted On: 2022-07-04
ماشاءاللہ
Most Read Articles